A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: getimagesize(): http:// wrapper is disabled in the server configuration by allow_url_fopen=0

Filename: views/template.php

Line Number: 36

Backtrace:

File: /home/bdtnews24/public_html/application/views/template.php
Line: 36
Function: getimagesize

File: /home/bdtnews24/public_html/application/controllers/Article.php
Line: 97
Function: view

File: /home/bdtnews24/public_html/index.php
Line: 292
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: getimagesize(http://bdtnews24.com/uploads/news/7230/par-election-02-20181201130022.jpg): failed to open stream: no suitable wrapper could be found

Filename: views/template.php

Line Number: 36

Backtrace:

File: /home/bdtnews24/public_html/application/views/template.php
Line: 36
Function: getimagesize

File: /home/bdtnews24/public_html/application/controllers/Article.php
Line: 97
Function: view

File: /home/bdtnews24/public_html/index.php
Line: 292
Function: require_once

বাংলাদেশ সোমবার 20, January 2020 - ৭, মাঘ, ১৪২৬ বাংলা


রংপুর বিভাগের ৩৩ আসনে বৈধ প্রার্থী ২৬৪জন॥ ৯১ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল

০২ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২১:৩২:৪৪

স্টাফ রিপোর্টার:

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রংপুরের ৬টি আসনসহ বিভাগের মোট ৩৩ টি আসনে বৈধ প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করেছে সংশ্লিষ্ট আসনগুলোর রিটার্নিং কর্মকর্তা। রবিবার যাচাই-বাছাই শেষে প্রার্থীদের উপস্থিতিতেই তাদের মনোনয়ন বাতিল ও বৈধ ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তাগণ। রিটার্নিং কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, রংপুর বিভাগের ৩৩ টি আসনে বিভিন্ন জোট, দল ও স্বতন্ত্র থেকে মোট ৩শ’৫৫ জন প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। রবিবার যাচাই-বাছাই শেষে ৯১ প্রার্থীর মনোননয়নপত্র বাতিল করে ২শ’৬৪ জন প্রার্থীকে বৈধ ঘোষণা করেন বিভাগের ৮ রিটার্নিং কর্মকর্তা। আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে বিস্তারিত:

রংপুরের ৬ টি আসনে দাখিল করা ৬০টি মনোনয়নপত্রের মধ্যে ১৪ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল ও ৪৬ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছে রিটার্নিং কর্মকর্তা। রবিবার বাছাই প্রক্রিয়া শেষে জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা এনামুল হাবীব এ তথ্য জানান।

রংপুর-১ (গঙ্গাচড়া ও আংশিক সিটি) আসন:
রংপুর-১ (গঙ্গাচড়া ও আংশিক সিটি) আসনে আওয়ামী লীগের সাবেক উপজেলা সাধারণ সম্পাদক এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিলকারী আসাদুজ্জামান বাবলু, স্বতন্ত্র প্রার্থী সিএম সাদিক ও আলী মো. আলমগীর হোসেনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এখানে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা, বিএনপির রইচ আহম্মেদ, মোকাররম হোসেন সুজন ও ওয়াহেদুজ্জামান মাবু, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মোক্তার হোসেন, নাগরিক ঐক্যের শাহ্ মো. রহমতুল্লাহ, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির ইশা মোহাম্মদ সবুজের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

রংপুর-২ (বদরগঞ্জ ও তারাগঞ্জ) আসন:
রংপুর-২ (বদরগঞ্জ ও তারাগঞ্জ) আসনে কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় নেতা আওয়ামী লীগের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দাখিলকারী বিশ্বনাথ সরকার বিটু ও জাসদের কুমারেশ রায়ের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এই আসনে বর্তমান এমপি আবুল কালাম মো. আহসানুল হক চৌধুরী ডিউক, জাতীয় পার্টির উপজেলা সভাপতি আসাদুজ্জামান চৌধুরী সাবলু ও প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়া উদ্দিন বাবলু, বিএনপির মোহাম্মদ আলী সরকার, মাহফুজ উন নবী ডন, স্বতন্ত্র প্রার্থী আনিছুর রহমান মন্ডল, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. আশরাফ আলী, বিকল্পধারার হারুন অর রশিদ ও জাকের পার্টির আশরাফ-উজ-জামানের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

রংপুর-৩ (সদর ও সিটি) আসন:
রংপুর-৩ (সদর ও সিটি) আসনে বাতিল হয়েছে স্বতন্ত্র প্রার্থী নাজমুল হক ও হাবিবুর রহমান সরকার (ফুলু সরকার) এর মনোনয়নপত্র। এই আসনে বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, বিএনপির মোজাফফর হোসেন ও রিতা রহমান, জাসদের সাখাওয়াত রাঙ্গা, প্রগতিশীল ডেমোক্রেটিক পার্টির সাব্বির আহম্মেদ, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমিরুজ্জামান পিয়াল, বাসদের আনোয়ার হোসেন বাবলু, জাকের পার্টির আলমগীর হোসেন আলম, খেলাফত মজলিশের তৌহিদুর রহমান মন্ডল ও ন্যাশনাল পিপলস পার্টির ছামসুল হকের মনোনয়নপত্র।

রংপুর-৪ (পীরগাছা ও কাউনিয়া) আসন:
রংপুর-৪ (পীরগাছা ও কাউনিয়া) আসনে বাতিল হয়েছে জাতীয় পার্টির মোস্তফা সেলিম বেঙ্গল এবং বিএনপির আমিনুল ইসলাম রাঙ্গার মনোনয়নপত্র। এখানে আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপি টিপু মুনশি, বিএনপির এমদাদুল হক ভরসা ও আফছার আলী, বাসদের আব্দুস সাদেক মিয়া, ইসলামী আন্দোলনের মাওলানা বদিউজ্জামানের মনোনয়নপত্র মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

রংপুর-৫ (মিঠাপুকুর) আসন:
রংপুর-৫ (মিঠাপুকুর) আসনে বিএনপির প্রার্থী ডা. মমতাজ হোসেন এবং শাহ মো. সোলায়মান আলম, স্বতন্ত্র প্রার্থী হালিম ম-ল এবং বাংলাদেশ মুসলিম লীগের মওদুদা আখতারের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।  এখানে জাতীয় পার্টির এসএম ফখর-উজ-জামান জাহাঙ্গীর, বর্তমান এমপি আওয়ামী লীগের এইচএন আশিকুর রহমান, জাকের পার্টির শামীম মিয়া, বাসদের মমিনুল ইসলাম, ইসলামী আন্দোলনের শফিকুল ইসলাম ভোলা মন্ডল ও নাগরিক ঐক্যের মোফাকখারুল ইসলাম নবাবের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

রংপুর-৬ (পীরগঞ্জ) আসন:
রংপুর-৬ (পীরগঞ্জ) আসনে বাতিল হয়েছে ইসলামী আন্দোলনের বেলাল হোসেনের। এখানে মনোনয়ন বৈধ হয়েছে  আওয়ামী লীগের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং জাতীয় সংসদের স্পিকার ও বর্তমান এমপি ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, বিএনপির সাইফুল ইসলাম ও খলিলুর রহমান, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির হুমায়ুন এজাজ , সিপিবি’র অধ্যাপক কামরুজ্জামান ও বিএনএফ’র এবিএম মাসুদ সরকারের।
ঋণ খেলাপি, বিল বকেয়া, স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ক্ষেত্রে মোট ভোটারের এক শতাংশ সমর্থন গ্রহণযোগ্য না হওয়াসহ বিভিন্ন কারণে ১৪ জনের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে বলে রিটার্নিং কর্মকর্তা জানিয়েছেন।


গাইবান্ধার ৫টি আসনে ৬৪ প্রার্থীর মধ্যে ১৬ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল:

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসন:
গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনে ঋণ খেলাপির অভিযোগে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাক সরকারের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া স্থানীয় ভোটারদের এক শতাংশের সমর্থনসূচক জমা দেওয়া কাগজে ভুল থাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থী এ.বি.এম মিজানুর রহমান, স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়নাল আবেদিন (সাদা), স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আব্দুর রহমান, স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা আ’লীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আফরুজা বারী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এমদাদুল হক নাদিমের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ আসনে বৈধ প্রার্থী ১০জন। তারা হলেন, মহাজোটভুক্ত জাতীয় পার্টির দলীয় প্রার্থী বর্তমান এমপি ব্যরিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী, ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী জেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী মাজেদুর রহমান, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের গোলাম আহসান হাবীব মাসুদ, ইসলামী আন্দোলনের আশরাফুল ইসলাম খন্দকার, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মোহসিন আলী, গণতন্ত্রী পার্টি’র আবুল বাসার মো. শরীতুল্লাহ্, বাম গণতান্ত্রিক জোট প্রার্থী বাসদ (খালেকুজ্জামান) নেতা গোলাম রব্বানী, গণফ্রন্ট এর শরিফুল ইসলাম, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের হাফিজুর রহমান সর্দার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি কর্ণেল (অবঃ) ডাঃ আব্দুল কাদের খাঁন।


গাইবান্ধা-২ (সদর) আসন:
গাইবান্ধা-২ (সদর) আসনে স্থানীয় ভোটারদের এক শতাংশের সমর্থনসূচক জমা দেওয়া কাগজে ভুল থাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থী একেএম রেজাউল কবীর, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মকদুবর রহমান সরকার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. ওয়াহেদ মুরাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ আসনে এখন বৈধ প্রার্থী ৮জন। তারা হলেন, মহাজোটভুক্ত আ’লীগের দলীয় প্রার্থী মাহাবুব আরা বেগম গিনি এমপি, ঐক্যফন্টভুক্ত বিএনপি’র দলীয় প্রার্থী গাইবান্ধা জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি খন্দকার আহাদ আহমেদ, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাহামুদ উন নবী টিটুল ও সম্প্রতি জাতীয় পার্টি থেকে বিএনপিতে যোগ দেয়া সাবেক এমপি আব্দুর রশীদ সরকার, বাম গণতান্ত্রিক জোট প্রার্থী সিপিবি নেতা মিহির ঘোষ, ইসলামী আন্দোলনের আল-মামুন, ইসলামী ঐক্যজোটের মওলানা জুবায়ের আহমেদ ও ন্যাশনাল পিপলস পার্টির জিয়া জামান।


গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্লাপুর-পলাশবাড়ী) আসন:
গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্লাপুর-পলাশবাড়ী) আসনে জাপা প্রার্থী মনজুরুল হক সাচ্চার দলীয় মনোনয়নপত্রে মহাসচিবের স্বাক্ষর জাল থাকায় এবং ঋণ খেলাপির অভিযোগে জেলা বিএনপি নেতা রফিকুল ইসলামের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া স্থানীয় ভোটারদের এক শতাংশের সমর্থনসূচক জমা দেওয়া কাগজে ভুল থাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থী তৌফিকুল আমিন মন্ডল টিটু, স্বতন্ত্র প্রার্থী আমিনুল ইসলাম দুদু ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু জাফর মো. জাহিদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ আসনে বৈধ প্রার্থী ১০ জন। তাঁরা হলেন, মহাজোটভু সাদুল্লাপুর উপজেলা আ’লীগের সভাপতি বর্তমান এমপি ডা. ইউনুস আলী সরকার, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যরিষ্টার দিলারা খন্দকার শিল্পি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এসএম খাদেমুল ইসলাম খুদি, ঐক্যফন্টভুক্ত গাইবান্ধা জেলা বিএনপির সভাপতি ডা. মইনুল হাসান সাদিক, জাতীয় পার্টি (জাফর) এর কেন্দ্রিয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ড. টিআইএম ফজলে রাব্বি চৌধুরি, বিএনপি নেতা সাবেক এমপি রওশনারা ফরিদ, ইসলামী আন্দোলনের মো. হানিফ দেওয়ান, বাম গণতান্ত্রিক জোট প্রার্থী বাসদ (খালেকুজ্জামান) নেতা সাদেকুল ইসলাম, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মোস্তফা মনিরুজ্জামান ও ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মিজানুর রহমান তিতু।


গাইবান্ধা-৪ (গোবিন্দগঞ্জ) আসন:
গাইবান্ধা-৪ (গোবিন্দগঞ্জ) আসনে স্থানীয় ভোটারদের এক শতাংশের সমর্থনসূচক জমা দেওয়া কাগজে ভুল থাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াতে ইসলামীর জেলা আমির ডা. আব্দুর রহিম সরকারের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।  এখন এ আসনে বৈধ প্রার্থী ১২ জন। তাঁরা হলেন, মহাজোটভুক্ত সাবেক সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের প্রকৌশলী মনোয়ার হোসেন চৌধুরী, জাতীয় পার্টির কাজী মশিউর রহমান ও জাকের পার্টির আবুল কালাম, ঐক্যফন্টভুক্ত বিএনপি’র বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক কবির আহমেদ, বিএনপি নেতা শামীম কায়সার লিংকন, বিএনপি নেতা ওবায়দুল হক সরকার, বিএনপি নেতা আমিনুল ইসলাম, গণফোরামের আব্দুর রউফ আকন্দ, ইসলামী আন্দোলনের সৈয়দ তৌহিদুল ইসলাম, বাম গণতান্ত্রিক জোট প্রার্থী বাংলাদেশ বিপ্লবী ওয়ার্কাস পার্টির নেতা ছামিউল আলম, এনডিপি’র খন্দকার মো. রাশেদ ও মুসলিম লীগের মো. সানোয়ার হোসেন।


গাইবান্ধা-৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) আসন:
গাইবান্ধা-৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) আসনে ঋণ খেলাপির অভিযোগে বাতিল হয়েছে বিএনপি নেতা নাজেমুল ইসলাম প্রধানের মনোনয়ন পত্র। এখন এ আসনে বৈধ প্রার্থী ৮ জন। তাঁরা হলেন, মহাজোটভুক্ত আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার এডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া এমপি, জাতীয় পার্টির দলীয় প্রার্থী সাবেক সাঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এএইচএম গোলাম শহীদ রঞ্জু, বাংলাদেশ ওয়ার্কাস পার্টির প্রার্থী আমিনুল ইসলাম গোলাপ, ঐক্যফন্টভুক্ত প্রার্থী কৃষক লীগ থেকে সদ্য বিএনপিতে যোগদানকারী ফারুক আলম সরকার, সাঘাটা উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি আলহাজ¦ মোহাম্মদ আলী ও বিএনপি নেতা শাহ মো. আবু বক্কর সিদ্দিক, ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের আব্দুর রাজ্জাক মন্ডল ও বাম গণতান্ত্রিক জোট প্রার্থী বাংলাদেশ কমিউনিষ্ট পার্টির যজ্ঞেস্বর বর্মন।


কুড়িগ্রামে ১৯ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল:

কুড়িগ্রাম-১ আসন:
কুড়িগ্রাম-১ আসন থেকে দাখিলকৃত ১০ জনের মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা ওসমান গনি’র মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।
 
কুড়িগ্রাম-২ আসন:
কুড়িগ্রাম-২ আসনে দাখিলকৃত ১৫ জনের মধ্যে ৪ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এরমধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী চৌধুরী সফিকুল ইসলাম ও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবু সুফিয়ান,  জাসদ প্রার্থী সলিমুল্লাহ ছলি’র সরকারি চাকুরী থেকে অবসরে যাওয়ার তিন বছর পূর্তি না হওয়ায় এবং সমাধান ঐক্য পার্টির নিবন্ধন না থাকায় বীর প্রতীক আব্দুল হাই সরকারের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।
 
কুড়িগ্রাম-৩ আসন:

কুড়িগ্রাম-৩ আসন থেকে দাখিলকৃত ৯ জনের মধ্যে বিএনপি প্রার্থী কেন্দ্রীয় যুবদলের সহ-সভাপতি আব্দুল খালেক ঋণ খেলাপী হওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

কুড়িগ্রাম-৪ আসন:
কুড়িগ্রাম-৪ আসনের দাখিলকৃত ২৩ জন প্রার্থীর মধ্যে ১৩ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। এরমধ্যে নির্বাচন কমিশনের নির্ধারিত ফরমের ৭ ও ৮নং কলাম পূরণ না করায় আওয়ামীলীগ প্রার্থী জাকির হোসেনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। জাকের পার্টির প্রার্থী শাহ আলম তার হলফ নামায় স্বাক্ষর না করায়, গণফোরামের প্রার্থী মাহফুজার রহমান দলীয় মনোনয়ন দাখিল না করায় তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এই আসন থেকে সর্বোচ্চ ১১ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করে। এরমধ্যে ১০জন প্রার্থী মোট ভোটের এক শতাংশ ভোটারের স্বাক্ষর যথাযথভাবে দাখিল করতে না পারায় তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করেন রিটার্নিং অফিসার। তারা হলেন গণ জাগরণ মঞ্চের মূখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার, আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ফজলুল হক মন্ডল ও এড.জাহাঙ্গীর আলম, বিএনপির বিদ্রোহী ঈমান আলী ও শাসসুল হক মৌলভী, জাপার বিদ্রোহী অধ্যক্ষ ইউনুছ আলী, জামাতের আবুল হাসেম ও মোস্তাফিজুর রহমান, বাবুল খান ও আবিদ আলভী জ্যাপ।

লালমনিরহাটে তিনটি আসনে ২৫ প্রার্থীর মধ্যে ৫জনের মনোনয়নপত্র বাতিল:

লালমনিরহাট-১ (পাটগ্রাম-হাতিবান্ধা) আসন:
লালমনিরহাট-১ (পাটগ্রাম-হাতিবান্ধা) আসনে শতকরা ভোটারের ১জন সমর্থনকারীর স্বাক্ষর জাল করার দায়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু হেনা মো. এরশাদ হোসেন সাজু ও হাবীব মো. ফারুকের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

লালমনিরহাট-২ (কালীগঞ্জ-আদিতমারী) আসন:
লালমনিরহাট-২ (কালীগঞ্জ-আদিতমারী) আসনের চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ না করায় বিএনপি মনোনীত চন্দ্রপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলমের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

লালমনিরহাট-৩ (সদর) আসন:
লালমনিরহাট-৩ (সদর) আসনের শতকরা ভোটারের ১জন সমর্থনকারীর স্বাক্ষর জাল করার দায়ে জাপা মনোনীত প্রার্থী অধ্যক্ষ একেএম মাহবুবুল আলম মিঠু ও স্বতন্ত্র প্রার্থী শামীম আহমেদ চৌধূরীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।
লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ শফিউল আরিফ ৫ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিলের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, শতকরা ভোটারের ১জন সমর্থনকারীর স্বাক্ষর জাল করার দায়ে ৪জনের এবং চন্দ্রপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তার স্বপদে থেকে মনোনয়নপত্র দাখিল করায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।


নীলফামারী জেলার চারটি সংসদীয় আসনে ৪৫ জন প্রার্থীর মধ্যে ১৯ জনের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে:

নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা) আসন:
নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা) আসনে দলীয় মনোনয়ন না থাকায় আমিনুল হোসেন সরকার (আ.লীগ), আহমেদ বাকের বিল্লাহ্ মুন (বিএনপি), নাগরিকত্বের প্রমাণ না থাকায় মকদুম আজম মাসরাফি (স্বতন্ত্র), এক শতাংশ ভোটারের তথ্যের গড়মিলের কারণে আব্দুস সাত্তার (জামায়াতের স্বতন্ত্র প্রার্থী) এর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এ আসনে বৈধ প্রার্থীরা হলেন,  আফতাব উদ্দিন সরকার (আ.লীগ), মো. রফিকুল ইসলাম চৌধুরী (বিএনপি), জেবেল রহমান গাণি (ন্যাপ), ন্যানসি রহমান কবীর (ন্যাশনাল পিপলস পার্টি), সাইফুল ইসলাম (ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ) হামিদা বানু শোভা (স্বতন্ত্র), জাফর ইকবাল সিদ্দিকী, (জাপা), ইউনুস আলী (বাসদ), মঞ্জুরুল ইসলাম (জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ) ও সিরাজুল ইসলাম (বিএনএফ)।

নীলফামারী-২ (সদর) আসন:
নীলফামারী-২ (সদর) আসনে এক শতাংশ ভোটারের তথ্যের গড়মিলের কারণে এজানুর রহমানের (স্বতন্ত্র প্রাথী) মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এ আসনের বৈধ প্রার্থীরা হলেন, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর (আ.লীগ), সামসুজ্জামান (বিএনপি),  মনিরুজ্জামান মন্টু (জামায়াত ২০ দলীয় জোট), জহুরুল ইসলাম (ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ), রাবেয়া বেগম (ন্যাশনাল পিপলস পার্টি) ও আতাউর রহমান বাবু (কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ)।

নীলফামারী-৩ (জলঢাকা) আসন:
নীলফামারী-৩ (জলঢাকা) আসনে মনোনয়নপত্র দাখিল করা ১১ জন প্রার্থীর মধ্যে  ৬জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। বাতিল হওয়া প্রার্থীরা হলেন, আনসার আলী মিন্টু (আওয়ামীলীগ স্বতন্ত্র), আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর (আওয়ামীলীগ স্বতন্ত্র), ফাহমিদ ফয়সাল চৌধুরী কমেট (বিএনপি), মোজাম্মেল হক (গণফ্রন্ট), ডা. বাদশা আলমগীর (স্বতন্ত্র) ও গোলাম পাশা এলিচ (জাসদ)। বৈধ প্রার্থীরা হলেন, বর্তমান সংসদ সদস্য অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা (আওয়ামীলীগ স্বতন্ত্র), সাবেক সংসদ সদস্য কাজী ফারুক কাদের (জাপা), মেজর (অব.) রানা মোহাম্মদ সোহেল (জাপা), আজিজুল ইসলাম (জামায়াত ২০ দলীয় জোট) ও আমজাদ হোসেন সরকার (ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ)।

নীলফামারী -৪ আসন:
নীলফামারী - ৪ (সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জ) আসনে ৮ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। আর বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে ৫ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র। গতকাল নীলফামারী জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিল ও বৈধ ঘোষণা করা হয়।  যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে: আমজাদ হোসেন সরকারের (বিএনপি)। সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র পদে থাকায় তাঁর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। অপরদিকে কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে থেকে মনোনয়ন দাখিল করায় রশিদুল ইসলামের (স্বতন্ত্র) মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। আর দলীয় মনোনয়ন না থাকায় সিকান্দার আলী (আ’লীগ), আক্তার হোসেন বাদল (আ’লীগ), আমিনুল ইসলাম সরকার (আ’লীগ), আমেনা কোহিনুরের (আ’লীগ) মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া, শর্ত অনুযায়ী ভোটারের তথ্যের গড়মিলের কারণে স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরহাদ হোসেন সম্্রাট (স্বতন্ত্র) ও বসুন্ধরা কিংসের সাধারণ সম্পাদক মিনহাজুল ইসলাম মিনহাজের (স্বতন্ত্র) মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এখন আসনটিতে বৈধ প্রার্থী পাঁচ জন। তারা হলেন, জেলা জাপার সভাপতি সংসদ সদস্য শওকত চৌধুরী (জাপা), জাপা চেয়ারম্যান এরশাদের ভাগ্নে আহসান আদেলুর রহমান আদেল ( জাপা), কণ্ঠ শিল্পী বেবি নাজনিন (বিএনপি), শহিদুল ইসলাম (ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ) ও আব্দুল হাই সরকার ( ন্যাশনাল পিপলস পার্টি)।

ঠাকুরগাঁওয়ে পাঁচ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল:

ঠাকুরগাঁও-১ আসন:
মনোনয়নপত্রে কোনো গড়মিল না থাকায় ঠাকুরগাঁও-১ আসনে জমাকৃত ৭জনের মনোনয়নপ্রত্রের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রমেশ চন্দ্র সেন, বিএনপির ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির অ্যাডভোকেট ইমরান হোসেন চৌধুরী, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আব্দুল জব্বার, ইসলামী ঐক্যজোটের রফিকুল ইসলাম ও ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) এর বলরাম গুহ ঠাকুরতার মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়। অন্যদিকে এ আসনে জাকের পার্টির প্রার্থী আব্দুল্লাহ আল মামুনের মনোনয়নপত্রে গড়মিল থাকায় তার মনোনয়ণপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও-২ আসন:
ঠাকুরগাঁও-২ আসনে জমাকৃত ৭জনের মনোনয়ন প্রত্রের মধ্যে ৭জন প্রার্থীর মনোনয়ণপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। তারা হলেন, বর্তমান এমপি আওয়ামী লীগ প্রার্থী আলহাজ্ব দবিরুল ইসলাম, বিএনপি প্রার্থী আব্দুল সালাম, বিএনপি প্রার্থী টিএম মাহবুবুর রহমান, বিএনপি প্রার্থী মো. জুলফিকার মর্তুজা চৌধুরী তুলা, বিএনপি (জামায়াত) প্রার্থী মো. আব্দুল হাকিম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশর প্রার্থী মো. রেজাউল করিম ও জাকের পার্টির প্রার্থী সামসুজ্জোহা।

ঠাকুরগাঁও-৩ আসন:
ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে জমাকৃত ১২ জনের মনোনয়ন প্রত্রের মধ্যে ৮জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ বলে ঘোষণা করা হয়েছে এবং ৪ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।
বৈধ প্রার্থীরা হলেন, জাতীয় পার্টির হাফিজ উদ্দিন আহম্মেদ, বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির ইয়াসিন আলী, বিএনপি’র জাহিদুর রহমান, বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির প্রভাত সমীর শাহজাহান আলম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নাজিম উদ্দীন, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) এর এনামুল হক, ন্যাশনাল পিপল্স পার্টির (এনপিপি) শাফি আল আসাদ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ইমদাদুল হক। বাতিল প্রার্থীরা হলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী গোপাল চন্দ্র রায়, স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল জলিল, স্বতন্ত্র প্রার্থী রাজেন্দ্র নাথ রায় ও বিকল্প ধারার এসএম খলিলুর রহমান।

পঞ্চগড়ের দুটি আসনে বিএনপি মনোনিত দুই প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা:

পঞ্চগড়-১ আসন:
ত্রুটিপূর্ণ মনোনয়নপত্রসহ বিভিন্ন কারণে পঞ্চগড়-১ আসনে বিএনপির মনোনিত প্রার্থী তৌহিদুল ইসলামের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ আসনে যাদের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে তারা হলেন, আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী মজাহারুল হক প্রধান, বর্তমান সংসদ সদস্য নাজমুল হক প্রধান (স্বতন্ত্র), বিএনপি মনোনিত প্রার্থী ব্যারিস্টার নওশাদ জমির, জাগপার প্রার্থী আল রাশেদ প্রধান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মো. আব্দুল্লাহ, জাকের পার্টির প্রার্থী সুমন রানা, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির প্রার্থী হাবিবুর রহমান ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী আবু সালেক।

পঞ্চগড়-২ আসন:
পঞ্চগড়-২ আসনে বিএনপির মনোনিত দুই প্রার্থীর মধ্যে ফরহাদ হোসেন আজাদের মনোনয়পত্রটি ত্রুটিপূর্ণ হওয়ায় তা বাতিল করা হয়েছে।  এ আসনে যাদের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে তারা হলেন, আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী ও পঞ্চগড়-২ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম সুজন, বিএনপি মনোনিত প্রার্থী নাদিরা আকতার, জাগপার প্রার্থী ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান (জাগপা), ন্যাশনাল পিপলস পার্টির প্রার্থী ফয়জুর রহমান মিঠু, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী কামরুল হাসান প্রধান, কমিউনিস্ট পার্টির প্রার্থী আশরাফুল আলম ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী লুৎফর রহমান রিপন।


দিনাজপুরের ৬ টি আসনে ১১ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল
দিনাজপুরের মোট ৬ টি আসনে ৫৯ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। এর মধ্যে রবিবার যাচাই-বাছাই শেষে ১১ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল ও ৪৮ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছেন রিটার্নিং অফিসার।
এর মধ্যে, দিনাজপুর-১ আসনে জামায়াত নেতা মাওলানা আব্দুল হামিদ, দিনাজপুর-২ আসনে আ’লীগের বিদ্রোহী মানবেন্দ্র রায়, দিনাজপুর-৩ আসনে বিএনপি’র প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেনসহ মোট ১১ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

 

 

 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন


এ সম্পর্কিত খবর

পাটগ্রামে ঠিকাদারের সংবাদ সম্মেলন

পাটগ্রামে ঠিকাদারের সংবাদ সম্মেলন

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বাউরা পূণম চাঁদ ভূতোরিয়া কলেজের চার তলা  ভবন নির্মাণে কোনো প্রকার নিম্মমানের

মিঠাপুকুরে হতদরিদ্রদের মুখে‘মা’র খাদ্যসামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত

মিঠাপুকুরে হতদরিদ্রদের মুখে‘মা’র খাদ্যসামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত

ঈদকে সামনে রেখে রংপুরের বিভিন্ন প্রান্তিক অঞ্চলে হত দরিদ্রদের মাঝে দাতা সংস্থা ‘মা’ এর সহায়তায়

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে মঙ্গলবার এক বিশাল ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।


জগন্নাথ বিশ্যবিদ্যালয়ের নতুন প্রক্টর ড.মোস্তফা কামাল

জগন্নাথ বিশ্যবিদ্যালয়ের নতুন প্রক্টর ড.মোস্তফা কামাল

   ইসলামী স্টাডিজ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোস্তফা কামালকে প্রক্টরত হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে জগন্নাথ বিশ্যবিদ্যালয় প্রশাসন। 

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্মদিন আজ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্মদিন আজ

  অত্যন্ত সাদামাটা ভাবে পালিত হয়েছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। বিশ্ববিদ্যালয়টির ১৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে

রংপুরে এনজিও আশার বিরুদ্ধে গ্রাহক হয়রানির অভিযোগ

রংপুরে এনজিও আশার বিরুদ্ধে গ্রাহক হয়রানির অভিযোগ

সরকারি সংস্থা এসোসিয়েশন ফর সোস্যাল এ্যাডভ্যান্সমেন্ট-আশা’র রংপুরের বাহার কাছনা শাখায় অনিয়ম, দুর্নীর্তি, চড়া সুদ, ফাঁকা 


বোমাটি আগেই পেতে রাখা হয়েছিল: ডিএমপি কমিশনার

বোমাটি আগেই পেতে রাখা হয়েছিল: ডিএমপি কমিশনার

রাজধানীর মালিবাগে পুলিশের গাড়িতে বিস্ফোরিত বোমাটি সাধারণ ককটেল থেকে অনেক বেশি শক্তিশালী ছিল বলে জানিয়েছেন

সাদুল্যাপুরে কাপড় ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা

সাদুল্যাপুরে কাপড় ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা

গাইবান্ধার সাদুল্যাপুরে বুদা শেখ  (৪৭) নামে এক কাপড় ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। রোববার

দ্বিতীয় মেয়াদে নরেন্দ্র মোদিকে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ

দ্বিতীয় মেয়াদে নরেন্দ্র মোদিকে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ

লোকসভা নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ী ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) আইন প্রণেতাদের নেতা নির্বাচিত হওয়ার পর নরেন্দ্র



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ

ঈদে’র জামা

ঈদে’র জামা

৩০ মে, ২০১৯ ১২:১০